বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিবন্ধী প্রফেসরের যাবজ্জীবন


Published: 2017-03-09 10:43:28 BdST, Updated: 2017-09-24 12:57:07 BdST

ইন্টান্যাশনাল লাইভ : বিশ্ববিদ্যালয়ের শারীরিক প্রতিবন্ধী প্রফেসরসহ ৫জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার অভিযোগ আনা হয়েছে। মাওবাদী রাজনীতির সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা থাকায় দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের জিএন সাইবাবাসহ ওই ৫ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়। ভারতের একটি আদালতে সাজাপ্রাপ্তদের মধ্যে আছেন জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হেম মিশ্র ও সাবেক সাংবাদিক প্রশান্ত রাহিসহ ৫ জন।

২০১৪ সালে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের প্রফেসর জিএন সাইবাবাকে গ্রেফতার করে মহারাষ্ট্র পুলিশ। তার বিরুদ্ধে মাওবাদী রাজনীতির সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ আনা হয়। মামলা হয় মহারাষ্ট্রের আদালতে। নাগপুর সেন্ট্রাল জেলে ২ বছর কারাভোগের পরে, শারীরিক কারণে মুম্বাই হাইকোর্টের আদেশে জামিন পান তিনি। তবে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাকে চাকরি থেকে বহিষ্কার করে।
 
২০১৩ সালে গ্রেফতার হন হেম ও রাহি। তাদের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে মাওবাদী নথিপত্র, হার্ডডিস্ক ও পেনড্রাইভ উদ্ধার করা হয়। তাদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী প্রফেসর সাইবাবাকে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে গ্রেফতার করা হয়। মঙ্গলবার তাদের বিরুদ্ধে রায় দেন বিচারক সুরাকান্ত সিন্ধে।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী প্রশান্ত সতিনাথন আদালতের শুনানি চলাকালে জানান, দীর্ঘদিন ধরে সক্রিয়ভাবে মাওবাদী কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন সাইবাবা। ২০১২ সালে ওডিশা আর অন্ধ্রপ্রদেশে নিষিদ্ধ ঘোষিত মাওবাদী সংগঠনের সম্মেলনেও অংশ নিয়েছেন তিনি। তার মতে, সহযোগীদের নিয়ে সাইবাবা ভারতের বিরুদ্ধে যুদ্ধে লিপ্ত ছিলেন।

এদিকে প্রফেসর সাইবাবার আইনজীবীরা জানিয়েছেন, আদালতের এ রায়ের বিরুদ্ধে মুম্বাই হাইকোর্টে আপিল করা হবে। সাইবাবাকে গ্রেফতারের পরে ভারতজুড়ে এর তীব্র প্রতিবাদ হয়। তার মুক্তির দাবিতে পথে নামে বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন।



[সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস ও টাইমস অব ইন্ডিয়া]


ঢাকা, ০৯ মার্চ (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//জেএন

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।