আমেরিকায় বন্ধুর জন্য প্রাণ গেল দুই বাংলাদেশী শিক্ষার্থীর!


Published: 2017-08-16 13:54:57 BdST, Updated: 2017-09-22 17:27:22 BdST

ইন্টারন্যাশনাল লাইভ : আমেরিকায় সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন দুই বাংলাদেশি শিক্ষার্থী। বাংলাদেশে বাবা মারা যাওয়া বন্ধুকে নিয়ে তার বোনের বাসায় যাওয়ার পথে ওই দুর্ঘটনা ঘটে। বন্ধুর প্রতি ভালোবাসা দেখাতে গিয়ে প্রাণ গেছে তাদের। তবে দুই বন্ধু নিহত হলেও বেঁচে গেছেন বাবা হারানো ফারজানা সুলতানা টুসী। তাকে আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহতরা হলেন- আমেরিকার নর্থ ক্যারোলাইনা শারলট ইউনিভার্সিটিতে পিএইচডি গবেষণারত ইমতিয়াজ ইকরাম আলী (২৬) ও প্রাচিতা দত্ত টুম্পা (২৫)।

জানা গেছে, স্থানীয় সময় সোমবার রাত ৮টার দিকে জর্জিয়ার অদূরে উইলকিংসন কাউন্টি এলাকায় ওই দুর্ঘটনা ঘটে।

জর্জিয়া স্টেট পেট্রল পুলিশ জানিয়েছে, তিন শিক্ষার্থীকে বহনকারী গাড়িকে একটি সেমি-ট্রাক আঘাত হানলে হতাহতের এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, বাংলাদেশে বাবা মারা গেছেন এমন খবর পেয়ে নর্থ ক্যারোলাইনা থেকে ফ্লোরিডায় বোনের বাড়ি যাচ্ছিলেন টুসী। এসময় তার সঙ্গী হয়েছিলেন বন্ধু ইমতিয়াজ ও টুম্পা। পথে উইলকিংসনে দুর্ঘটনার মুখে পড়েন তারা।

ডিপিএস পাবলিক তথ্য অফিসের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, উইলকিনসন কাউন্টির ইউএস-৪১১ ও জিএ-১১২ সংযোগ সড়কের কাছে সোমবার রাত ৮টার দিকে দুটি দুর্ঘটনার খবর পায় জর্জিয়া স্টেট প্যাট্রল বিভাগ। খবর পাওয়ার পর পরই নিরাপত্তাবাহিনীর সসদ্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছায়।

বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা একটি সাদা গাড়িতে করে জিএ ১১২ সড়কে যাচ্ছিলেন বলে জানিয়েছে আমেরিকার স্থানীয় সংবাদমাধ্যম থার্টিন ডব্লিউম্যাজ।

সংবাদ মাধ্যমটি জানায়, শিক্ষার্থীরা জিএ-২৯ সড়কের সংযোগস্থল পার হওয়ার সময় বিপরীত দিকে থেকে আসা একটি সেমি ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।

ট্রাকের চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে যাত্রীবাহী গাড়িটিতে আঘাত হানে। এতে গাড়ির চালক ইমতিয়াজ ও পেছনের আসনে বসা টুম্পা ঘটনাস্থলেই মারা যান।

অন্যদিকে পেছনের আসনে থাকা টুসীকে গুরুতর আহত অবস্থায় জর্জিয়ার নভিসেন্ট হেলথ মেডিকেল সেন্টারে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার অস্ত্রোপচার সফল হয়েছে।


হতাহত তিনজনের বন্ধু ফাইরুজ সাকিব তানজিম জানান, ২০১১ সালে তারা চার বন্ধু ঢাকায় মিলিটারি ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজিতে (এমআইএসটি) অ্যারোনটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে পড়াশোনা শুরু করেন।

২০১৬ সালের আগস্টে তানজিম, ইমতিয়াজ ও টুম্পা পিএইচডি করতে একসঙ্গে আমেরিকায় যান। এদিকে দুই সপ্তাহ আগে টুসীও শারলট ইউনিভার্সিটিতে পিএইচডি করতে আসেন।

তানজিম জানান, দুদিন আগে বাংলাদেশে টুসীর বাবা মারা যান। এ খবর পেয়ে ইমতিয়াজ ও টুম্পাকে নিয়ে তিনি ফ্লোরিডায় বোনের বাসার উদ্দেশে রওনা দেন। পথে দুর্ঘটনা ঘটে। পুলিশ জানিয়েছে দুর্ঘটনার জন্য দায়ী ট্রাকের চালককে গ্রেফতার করা হয়েছে।


ঢাকা, ১৬ আগস্ট (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//জেএন

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।