লাহোরে ফাইনাল খেলবেন না গেইল-সাঙ্গাকারা-জয়াবর্ধন


Published: 2017-02-22 17:37:20 BdST, Updated: 2017-09-22 23:13:12 BdST

 


স্পোর্টস লাইভ: পাকিস্তান সুপার লীগ (পিএসএল) কর্তৃপক্ষ হোঁচট খেয়েছে। বড় ধরণের ধাক্কা আসবে এমটি আন্দাজও তারা করেছিলেণ।দ্বিতীয় আসর শুরু হওয়ার আগ থেকে তারা বলে আসছে- এবারের ফাইনাল ছাড়া সবগুলো ম্যাচ হবে আরব আমিরাতে। আর ৫ মার্চের ফাইনাল হবে পাকিস্তানের লাহোরে।

বিদেশি খেলোয়াড়দের আপত্তি থাকা সত্বেও তারা ফাইনাল লাহোরে আয়োজনের ব্যাপারে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। এমন কি বিদেশি কেউ ফাইনালে খেলতে না চাইলে তার বদলে পাকিস্তানের স্থানীয় খেলোয়াড়দের খেলানো হবে বলে জানায় তারা। এ ব্যাপারে এতদিন মুখ খোলেননি বিদেশি কোনো খেলোয়াড়।

তবে একসঙ্গে মুখ খুললেন করাচি কিংসের তিন খেলোয়াড়। তারা হলেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের ক্রিস গেইল ও শ্রীলঙ্কার কুমার সাঙ্গাকারা ও মাহেলা জয়াবর্ধনে। তারা জানিয়ে দিলেন, করাচি ফাইনালে উঠলে আর ফাইনাল ম্যাচটি লাহোরে হলে তারা খেলবেন না। এ খবর দিলো পাকিস্তানের ‘দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন’।

এমন বড় তিন খেলোয়াড় না থাকলে ফাইনালের রঙ ফিকে হয়ে যাবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। তবে তার আগে কথা হলো- করাচি ফাইনালে উঠতে পারবে কি-না। ২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের খেলোয়াড়দের বহনকারী বাসের ওপর সন্ত্রাসী হামলা হয়। সেটা হয়েছিল এই লাহোরে।

সেই সন্ত্রাসী হামলার শিকারদের মধ্যে ছিলেন কুমার সাঙ্গাকারা ও জয়াবর্ধনে। সেই লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামেই পিএসলের এবারের ফাইনালের আয়োজনের সিদ্ধান্ত। সেই মাঠে ফিরতে নিশ্চয় ভয় কাজ করছে তাদের দু’জনের। এরই মধ্যে ১৩ ফেব্রুয়ারি লাহোরে একটি আত্মঘাতী বোমা হামলা হয়। তাতে মারা যান ১৩ ব্যক্তি। সব মিলিয়ে এখন পরিস্থিতি ঘোলাটে হয়ে উঠেছে। যদিও ওই সন্ত্রাসী হামলার পর ফ্র্যাঞ্চাইজিদের নিয়ে বৈঠক করেন পিএসএলের প্রধান নাজাম শেঠি।

বিদেশি খেলোয়াড়দের নিরাপত্তার ব্যাপারে আশ্বস্ত করতে তিনি ফ্র্যাঞ্চাইদের প্রতি আহবান জানান। এমন কি লাহোরের ফাইনালে সফর করলে বিদেশি খেলোয়াড়দের ম্যাচ ফি’র পরিমাণ অনেক বাড়িয়ে দয়ো হবে বলেও তিনি কথা দেন। ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো লাহোরে ফাইনালের ব্যাপারে কোনো প্রশ্ন তোলেনি।


বাংলাদেশের দুই ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবাল খেলেন পেশোয়ার জালমিতে। একই দলে খেলেন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপজয়ী ওয়েস্ট ইন্ডিজের অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি। ক্লাবটির মালিক জাভেদ আফ্রিদি জানিয়েছেন, তার দল ফাইনালে উঠলো সব বিদেশি খেলোয়াড় লাহোরে যেতে সম্মত হয়েছে।

এ ব্যাপারে কোনো বিদেশি আপত্তি তোলেননি বলে জানিয়েছেন তিনি। অন্যদিকে বাংলাদেশের আরেক খেলোয়াড় মাহমুদুল্লাহ খেলেন কোয়েটা গ্লাডিয়েটর্সে। ওই দলের খেলেন ইংল্যান্ডের ‘সাবেক’ ব্যাটসম্যান কেভিন পিটারসেন। তিনি এখনো লাহোরে যাওয়া, না-যাওয়া নিয়ে কোনো সিদ্ধান্ত জানাননি।

কোয়েটা ফাইনালে উঠলে তিনি সিদ্ধান্ত জানাবেন বলে জানিয়েছেন।

 

ঢাকা, ২২ ফেব্রুয়ারি (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//এএম

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।