রাসেল আহম্মেদের এর বিজয় দিবসের কবিতা


Published: 2016-12-15 16:33:39 BdST, Updated: 2017-11-20 03:33:43 BdST


অপূর্ব বিজয়


শত্রু মোকাবিলা করতে গিয়ে
তোমার সংগ্রাম শুরু।
স্বাধীন পতাকা ছিনিয়ে
চমকিয়েছো বিশ্বের ভুরু ।
সবুজের বুকে রক্তের আল্পনা আকাঁ চিত্রে।
বাংলাদেশ ঠাই পেল বিশ্ব মান চিত্রে।
স্বাধীনতা তুমি মোরে দিয়েছো বীরের পরিচয়
তুমি মোরে দিয়েছো অপূর্ব বিজয়।
সে দিন নিঃশেষে প্রান
করিল দান বাংলা মায়ের মুক্তি, সোনার সন্তান।
সে দিন রক্তের জোয়ারে ভেসেছে রাজধানী।
পিপাসার মুখে কেউ পায়নি পানি।
ভেসেছে জমীনে স্বজনের হাহাকার
করেছে ওরা নিষ্ঠুর অনাচার।
ভাই বোন কত যে করে হত্যা।
ওরা আর কেউ নয় পাকিস্তানি জ্যান্তা।
ধর ধর কাঁপতে থাকে,
সোনার বাংলার মাঠঘাট।
চার দিকে গুলির আওয়াজ ফাট ফাট।
বাঙালি কৃষক শ্রমিক ছাত্র কেউ নয় আপশের পাত্র।
মাটি দিবো না থাকিতে জান চিল মুখে এই স্লোগান।
পরে গোলা গুলির অবসান হইল।
বাংলা স্বাধীন হয়ে রইল।


জাগো মুসলীম


কি যে অন্ধকার আসিতেছে নেমে
বিশ্বের তরে মুসলীম দুয়ারে, দুয়ারে
তবো আসিতেছে বিপদ
ভাসিয়ে নিভে কলংঙ্ক জোয়ারে।
মুসলীম ভাই চেয়ে দেখ ধরার তটে
কতো মুসলীম নির্যাতিত কাফেরের নিকটে।
ঈমানের জোর নাই ঈমান তোর শক্ত নাকো
হে মুসলীম তোমরা নবীর আর্দশ আকরাইয়া রাখো।
তোমার আবার ঈমান গঠন করো
নতুন রুপে এসে।
দেখবে অন্ধকার কেটে গেছে
ঈমান স্বচ্ছ ভেসে।
জীবন দরিয়ায় বহিবে সুখের ডেউ।
খোদার পথ হতে তোরে সরাতে পারবে না কেউ।
হে মুসলীম তোমরা শুনো নাই?
নুহ, মুসার জাতির বিড়ম্বনা।
খোদার সাথে জিহাদ করে কেউ পায়নি পানা।

দুয়ারে সাপের গর্জন শুনো নাকি?
কতো খোদা বিমুখ করেছে ভীর।
হে মুসলীম তোমার ঈমান খাঁটি করো নইলে ভেঙে হবে চৌচির।
তোমরা কি বুঝোনা এরা চলে
ধরার আলোর পিছে।
চলে সত্যের পথ ছেরে আরো অনেক নিচে।


হে মুসলীম গঠন করো ওমরের ঈমান খানি।
যে খোদার ভয়ে কাঁদতো জান্নাতি খবর জানি।
কেমন ঈমান ছিল জান না তুমি।
ওমরের ভয়ে কাঁপতো সাহারা মরুভূমি।

তবু কেন তুমি ভয় পাও?
কেন কাঁপো কাফেরের ডরে।
 অল্প ঈমানদারি ছিলো উহুদ প্রান্তরে।
হে মুসলীম সমাজ হচ্ছে বিসাদ ভূমি।
খোদার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে সর্বসমি।
দেশে দেশে মসজিদ চলছে ভাঙ্গা।
মুসলীমের রক্তে তলোয়ার হচ্ছে রাঙ্গা।
ঘরে ঘরে বেপর্দা বেয়াপনা।
হয় না মানব কল্যানের বীজবুনা।
সকল বাধা ছিন্ন করে শির তোর উচ্চে তুলে বসা।
খোদার হুকুম পালন করো পেরিয়ে সকল দশা।
ঘুমিয়ে থাকিস না মুসলীম উঠ তোরা জেগে।
বিজয় আসবে বিশ্বের তরে রহমতের বেগে।



চির অক্ষয়


তারাই ধন্য দ্বীনের জন্য
যারা ছিলো অকুতোভয়।
নাই, নাই, নাই তাদের ক্ষয়।
খোদার দ্বীনের জন্য, জাফর গেল মুতার প্রান্তরে
শহীদ হলো দ্বীনের জন্য সুখ পেল অন্তরে।
হয়েছে সে চির অক্ষয়।
নাই্ নাই্ নাই তাদের ক্ষয়
আরবে মরু প্রান্তে ভেসে যাওয়া রক্তের গতি
আপন মনে আনিল আজ দুর দুরান্ত বীরের স্মৃতি।
মনে পরে আমির হামযার শহীদের সে রক্ত ঝরা দিন।
নির্মম ভাবে কতল করিলো তারে ওয়াসি নামের কমিন।
কতল করে ক্ষান্ত নয় নাক কান কেটে ওহাসি দিয়ে ছিলো নিষ্ঠুরতার পরিচয়।
হয়েছে সে দিন আমির হামযার জয়।
নাই্ নাই্ নাই তাদের ক্ষয়।
ইসলাম সাহস শক্তি জাগানো যৌবন মম।
শত বেদনা থাকলে ও তার সুখ ঊষার সম।
নাই তার কোন পরাজয়। নাই, নাই, নাই তাদের ক্ষয়।
সুলাফার করিলো মান্নত। আসামের মাথা কাটিবে বলে করিলো হিম্মৎ।
ঘোষণা করিলো সারা আরব জুড়ে।
আসামের মাথা যে কাটিবে, একশত উট পুরষ্কার দিবে তারে।
লোভে পরে চেষ্টা চালাতে লাগলো সুফিয়ান।
যে করে হোক আনবে চিনিয়া আসামের প্রান।
ষড়যন্ত্র করে আসামকে আনিলো মদিনার পথে।
বিশ্বাসঘাতকতা করিলো আসামের সাথে।
নানান ভাবে হত্যা করিলো
ছয় জন সাহাবী নিষ্ঠুরতার সাথে।
কাফেরেরা ভেবেছে হয়েছে তাদের পরাজয়।
নাই, নাই, নাই তাদের ক্ষয়।
শত জীবনের শত কাফনের পরে
এসেছে ইসলামের রাঙ্গা নিশি ভোর।
এ শেষে শান্তি সুখ নিয়ে আলোর প্রহর।
কত বোন কত মা হয়েছে সন্তান হারা।
তবু তারা চায়নি অন্য কিছু ইসলাম ছারা।
কি করে হবে তাদের পরাজয় নাই
নাই, নাই তাদের ক্ষয়।
দুরান্ত সাহস ঈমানি শক্তিতে পূর্ণ ছিল মদিনাবাসি।
শত ত্যাগের পরেও ছিলো মুখে অফুরন্ত হাসি।
তারাই করেছে বিশ্বকে জয়। নাই
নাই,নাই তাদের পরাজয়।

শত ত্যাগ শত রক্তে
আল্লাহর জমিনে উড়েছে ইসলামের পতাকা।
কেউ যদি নতুন করে ষড়যন্ত্র করো ইসলাম নিয়ে তা হবে বৃথা।  

এরা লক্ষ কাফেরকে পরাজয় করানো মুসলমান।
এরা দেখতে মরা হলে, তাজা ওদের প্রান।
ইসলামের শত্রুরা হও সাবধান। যারা ইসলামের ক্ষতি করতে চাও তলে তলে।
মনে রেখ এখনো আছে রক্ত মাখা হাতিয়ার মুসলমানের দলে।
সেই ঈমান নামের হাতিয়ার করতে হবে দ্বার।
মাথা উচু করে দাড়াবে, মুসলমান আবার।
আবার হবে মুসলমানের জয়। নাই, নাই
নাই তাদের ক্ষয়। মুসলমানের ঈমান এখন শক্ত হাতিয়ার।
যার সামনে দাড়ানোর মতো নাই কিছু আর।
শত শত কাফের হয়েছে পরাজয়। নাই
নাই, নাই তাদের ক্ষয়।


প্রতিবাদ


মায়ার মার ঐ সীমান্ত তালা
৫ তারিখে ভেঙ্গে ফেলা।
মুসলীম ওরা আমার ভাই
ওদের পাশে দাড়ানো চাই।
কইগেল আজ মঞ্চ নাস্তিকের দল।
মানবতা লঙ্গন হয়না এখন তোরা বল?
এখনো কেন চুপ রয়েছে বাংলাদেশ সরকার।
প্রতিবাদের আগুন জ্বালানো এখন কিন্তু দরকার।
ঘরে ঘরে গড়ে তুলো প্রতিবাদের দুর্গ।
মুসলীম হত্যা বন্ধ করে গড়ো দ্বীনের সর্গ।
ওরে ভাই তরুন জোয়ান হও তোমরা হও আগুয়ান।
ভাইয়ের বিপদে ভাইয়ের পাশে করবো শত্রুর সাথে লড়াই।
আমরা হলাম মুসলীম সেনা কাফেরদের কি ডরাই।
মুসলীম আমরা মরলে শহীদ বাঁচলে কিন্তু গাজী।
প্রতিবাদ করার জন্য সবাই হই রাজি।

 

ঢাকা, ১৫ ডিসেম্বর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)// এআই

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।