মেডিকেল ছাত্রীর সঙ্গে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রের প্রেমের গল্প


Published: 2016-10-15 09:26:55 BdST, Updated: 2017-11-20 19:40:26 BdST

ক্লাস টেন থেকে শুরু, তারপর আপুটি চান্স পেয়ে যায় ঢাকা মেডিকেলে কিন্তু ভাইয়া কোথাও চান্স পায় না। সবাই ভেবেছিল রিলেশন এবারই শেষ, কারণ বাস্তবতা অনেকটা সেরকমই। কিন্তু যারা বাস্তবতাকেও হার মানাতে চায় সেরকম দুজনই ছিলেন কেয়া আপু আর সফিক ভাইয়া। অবশেষে সফিক ভাই ভর্তি হন তিঁতুমীর কলেজে। জাতীয় ভার্সিটিতে আস্তে আস্তে এগিয়ে যাচ্ছিলেন। নিজের কাছে হেরে গিয়ে একসময় নিজেই হার মেনে নিয়েছিলেন, কিন্তু আপু উনাকে প্রচন্ড ভালোবাসতেন।

প্রায়ই মেডিকেল থেকে তিঁতুমীরে গিয়ে মাথায় হাত বুলিয়ে বোঝাতেন আমি আছি তোমার পাশে।
.
আপু বেশ সুন্দরী ছিলেন, ইন্টার্নি থেকে ব্যাচমেট অনেকে প্রপোজ করেছিল কিন্তু আপু যে ভালবেসেছিলেন ভাইয়াকে। সেকেন্ড ইয়ারে থাকার সময়েই বাসা থেকে বিয়ের জন্য চাপ আসা শুরু করল। একটি মেয়ের জন্য বাসার বিপক্ষে যাওয়া অনেকটা অসম্ভব কাজ, তবুও বাবা ভাইকে অনেক বুঝিয়েছিলেন। কাজ হচ্ছিল না। আজ ডাক্তার, কাল ম্যাজিস্ট্রেট পরশু আর্মি অফিসার পাত্র আসতেই থাকত। এই সময়ে নিজের আত্মীয়স্বজনেরাও উঠে পড়ে লেগেছিল বিয়ে দেয়ার জন্য, থার্ড ইয়ারে অনেক ভালো একটি পাত্র এল, ছেলে আমেরিকা থাকে, ইঞ্জিনিয়ার। গাড়ি, বাড়ী সবই ছিল, কিন্তু কেয়া আপুর তাতে কোন খেয়াল ছিলনা।
.
জোর করে যেদিন এঙ্গেজমেন্ট হয়েছিল সেদিন আপু অজ্ঞান হয়ে গিয়েছিলেন, তার আগে সম্ভবত দুইদিন কিছু খাননি। সুস্থ হওয়ার পরে ভেবে পাচ্ছিলেন না কি করবেন। ভাইয়াও সে সময়ে কিছু করার অবস্থায় ছিলেন না। উপায় না দেখে আপু পাত্রকে সব খুলে বললেন। শেষে সে বিয়ে হয়নি, রাগ করে বাবা-ভাইও আপুর সাথে কথা বলত না। নিজের খরচ নিজেকেই চালাতে হতো, ভাইয়াও কিছু হেল্প করতেন। সেই দিনগুলোতে অনেক কষ্টে ছিলেন দুজনই, মানসিক কষ্ট ছিল আরো বেশী।
.
আজ উনাদের মেয়েটির বয়স এক মাস হয়েছে। দুজনেই মাশাল্লাহ সুখে আছেন। সব কিছুই ঠিক হয়ে গেছে। ভাইয়া-আপু দুজনেই জব করেন। তাদের লাল-নীল সংসার। সেখানে মার্সিডিজ বেঞ্জ না থাকলেও বাইক আছে, দামী এপার্টমেন্ট না থাকলেও ছোট্ট ফ্লাট আছে যেখানে সুখ আছে, ভালোবাসা আছে আর আছে সারাজীবন পুষে রাখা স্বপ্নগুলো, চাঁদের আলোয় যে স্বপ্ন আকাশে ভাসিয়ে দেয়া যায়, মধ্যরাতে বাইকে করে ফুচকা খাওয়া হয়, নিয়ন বাতির নিচে হাজার বছর হাত ধরে হেঁটে বেড়ানো যায় আর অফিস থেকে ফিরেই বুকে জড়িয়ে ধরে বলা যায় ' হ্যাঁ, তুমি আছো আমার পাশে'.....।।

 

লেখক : জাবেদ আরেফিন

আমরা সল্পতেই শান্তি পেতে পারি। আবার অনেক অর্জন করেও অশান্তিতে থাকতে পারি। তাই আমাদের উচিত সম্পদের পিছনে না ঘুরে শান্তির পিছনে ঘুরে বেড়ানো। হোক সেটা স্বল্পতেই...



ঢাকা, ১৫ অক্টোবর (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//জেএন

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।