বয়ফ্রেন্ডের শোকে আত্মহত্যার আগে যা লিখে গেল ছাত্রী!


Published: 2017-07-11 12:31:16 BdST, Updated: 2017-11-19 01:15:08 BdST

লাইভ প্রতিবেদক : গত রমজানে মারা গেছে বয়ফ্রেন্ড। আর সেই শোকে না ফেরার দেশে চলে গেছে প্রেমিকা কলেজছাত্রী। মারা যাওয়ার আগে তিনি তার মৃত্যুর কারণ লিখে গেছেন।

ওই ছাত্রীর পড়ার টেবিলে পাওয়া চিরকুটে লেখা ছিল :

‘তামজিদ আমার ভালোবাসা। আমার বেঁচে থাকার প্রেরণা। আমার জীবন। কেন তুমি এরকম করলা। কেন? আমাকে ছেড়ে এইভাবে চলে গেলা। আমার এই প্রশ্নের উত্তর মনে হয় আমি আর পাব না। কিন্তু আমি জানতে চাই আমার ভালোবাসার কি কোন কম ছিল? বিশ্বাস কর আমি এখন তোমাকে হারিয়ে ভাল নাই। আমি আবার তোমার জীবনে আসব। কিন্তু দেখা গেল সেই জীবনে তুমি আমাকে ফেলে যেতে পারবে না। আমরা আবার এক সাথে থাকব। আবার আগের মতো ভালোবাসব। সেখানে কিন্তু আমাকে বেশি বেশি আদর করতে হবে।....

‘জান সবাই বলছে আমি নাকি দায়ি, তুমি সবাইকে বলে দেও না, যে আমি তোমাকে ছাড়ি নাই। তুমি আমাকে ছেড়ে চলে গেছে। কিন্তু তুমি আবার আসছো আমাকে নেওয়ার জন্য কিন্তু সেটা কেউ জানে না। আমি কাউকে বলবো না তুমি আমাকে নিয়ে যাবে। হাত ধরে এই পৃথিবীর রাস্তা থেকে আখিরাতের রাস্তায় নিয়ে যাবে।

তুমি আমাকে তাড়াতাড়ি নিয়ে যাও না। এখন আমার দম বন্ধ হয়ে আসে।... তুমি হয়তো আমাকে ভালোবাসনি, তাই না। যদি ভালোবাসতে তাহলে আমাকে ছেড়ে চলে যেতে না। কিন্তু দেখ আমিও তোমাকে সত্যিকারের ভালোবাসতে পারি নাই। তুমি আমাকে ছেড়ে চলে গেছ বলে আমিও তোমাকে ভুলে ভালই আছি।...

আমি তোমার সঙ্গে থাকতে চাই। নেবে না আমাকে আপন করে কাছে টেনে নিতে’

এসব কথা লিখে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে আফসানা মীম (১৭) নামে ওই কলেজছাত্রী। ঘটনাটি ঘটে গত রোববার রাত সাড়ে ১০টার দিকে পূর্ব আরিচপুর জামাইবাজার এলাকায়। ওই ছাত্রীর পড়ার টেবিল থেকে প্রেমিককে লেখা দুইপৃষ্ঠার একটি চিরকুট উদ্ধার করা হয়েছে। নিহত মীম টঙ্গীর সফিউদ্দিন সরকার কলেজের দ্বাদশ শ্রেণীর বাণিজ্য বিভাগের মেধাবী ছাত্রী। মীম বরিশালের উজিরপুর উপজেলার মসান গ্রামের ফারুক হোসেনের মেয়ে এবং পরিবারের সাথে টঙ্গীর পূর্ব আরিচপুরের আবু হানিফের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন।

পুলিশ জানায়, রোববার সন্ধ্যায় পরিবারের সবাই যখন বাড়ির বাইরে ছিল তখন মীম ঘরের সিলিং ফ্যানের সাথে ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। রাত সাড়ে ১০টার দিকে নিহতের বড় ভাই শাকিল ঘরে প্রবেশ করে মীমের ঝুলন্ত লাশ দেখে পুলিশকে খবর দেয়।

টঙ্গী মডেল থানার উপ-পরিদর্শক শাহীন শেখ জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে প্রেমঘটিত কারণে আত্মহত্যা করেছে মীম। পরিবারের ভাষ্য অনুযায়ী যাকে নিয়ে চিঠিটি লেখা হয়েছে সে গত রমজানে মারা গেছে। হয়তো সেই শোক সইতে না পেরে মীম আত্মহত্যা করেছে।


ঢাকা, ১১ জুলাই (ক্যাম্পাসলাইভ২৪.কম)//জেএন

ক্যাম্পাসলাইভ২৪ডটকম-এ (campuslive24.com) প্রচারিত/প্রকাশিত যে কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা আইনত অপরাধ।